দুই মেয়ের লাশের সামনে নাচ-গান করছিলেন বাবা-মা

ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশে ‘তন্ত্র-মন্ত্রে’ বিশ্বাসী ‘উচ্চশিক্ষিত’ মা বাবার হাতে প্রাণ গেল দুই মেয়ের। রোববার (২৪ জানুয়ারি) মদনাপাল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে দেখে, লাল শাড়িতে পেঁচানো রক্তাক্ত মৃতদেহের সামনে নাচ-গান করছেন তার বাবা-মা। এমন ঘটনায় রাজ্যজুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

এসময় নিহতদের আটক বাবা ডা. ভি পুরুষোত্তম নাইড়ু এবং মা পদ্মজা দাবি করেন, তারা আবারও তাদের মেয়েদের জীবিত করে দিতে পারবেন। এজন্য তাদের একদিন সময় দিতে হবে। পুলিশ ধারণা করছে, কোনো তান্ত্রিকের পাল্লায় পড়ে এই কাজ করেছেন ওই বাবা-মা।

জানা গেছে, ঘটনার সময় নিহত আলেখ্য (২৭) ও তার বোন সাই দিব্যর (২৩) শরীর লাল শাড়ি ঢাকা ছিল এবং তাদের মাথায় গভীর ক্ষতচিহ্ন ছিল। ধারণা করা হচ্ছে, মাথায় ডাম্বেলের আঘাতে তাদের মৃত্যু হয়েছে। রবিবার সন্ধ্যায় এই হত্যাকাণ্ডের আগে পরিবারটি একটি উপাসনায় অংশ নিয়েছিল বলে মনে করা হচ্ছে।

উচ্চ শিক্ষিত হয়েও এই অভিভাবকরা বিশ্বাস করেছিলেন, তাদের মেয়েদের ওপর অশুভ আত্মা ভর করেছিল। তাই নিহত মেয়েদের লাশ সামনে নিয়ে নাচ এবং গান করছিলেন তারা।

সংবাদমাধ্যম এনডিটিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে পুলিশ কর্মকর্তা রবি মনোহর বলেন, “অপরাধের জায়গাটি দেখে বোঝা যাচ্ছে সেখানে কিছু আচার-অনুষ্ঠান করা হয়েছিল। নিহতদের বাবা-মাকেও বিভ্রান্ত বলে মনে হচ্ছিল।”

স্থানীদের দেওয়া তথ্যানুযায়ী জানা যায়, নাইড়ু মদনাপালে সরকারি বালিকা ডিগ্রি কলেজের রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক এবং উপ-অধ্যক্ষ। আর পদ্মজা আইআইটির কোচিং ইনস্টিটিউটে কর্মরত ছিলেন।

প্রতিবেশীদের বরাত দিয়ে পুলিশ জানিয়েছে, লকডাউন চলাকালীন দু’বোন বাড়ি ফিরে আসে। কয়েক মাস ধরেই কারো বাড়ির ভেতরে প্রবেশের অনুমতি ছিল না। এমনকি ঘটনার চারদিন আগে থেকেই বিদায় দেওয়া হয় কাজের লোকদেরও।

চিতোরের পুলিশ প্রধান সেনথিল কুমার বলেন, “নাইড়ু ও তার স্ত্রীও আত্মহত্যার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। তবে পুলিশ আসায় তা আর সম্ভব হয়নি।”