১১২ ম্যাচ কম খেলেও টেস্টে ভারতকে টপকে গেল পাকিস্তান

ভারতের যখন টেস্ট অভিষেক হয় তখন আলাদাভাবে ভারত বা পাকিস্তানের জন্মই হয়নি সেই ১৯৩২ সালে। আর পাকিস্তানের টেস্ট ক্রিকেটে পড়েছে আরো ২০ বছর পর ১৯৫২ সালে। নিজেদের ৮৯ বছরের টেস্ট ইতিহাসে ভারত খেলেছে ৫৪৬ ম্যাচ। আর ৬৯ বছরে পাকিস্তান খেলেছে ৪৩৪ ম্যাচ।

ক্রিকেটের এই আদি সংস্করণে জয়, হার, ড্র ও খেলোয়াড়সংখ্যাতেও স্বাভাবিকভাবে ভারতের অনেক পেছনে পাকিস্তান। কিন্তু একটি হিসাবে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের পেছনে ফেলে দিল পাকিস্তান। ১১২ ম্যাচ কম খেলেও টেস্টে অধিনায়কের সংখ্যায় ভারতীয়দের পেছনে ফেলে দিয়েছে ইরমান খানের দেশ।

গতকাল ২৬ জানুয়ারি দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে করাচি টেস্টে সাদা পোশাকের অধিনায়ক হিসেবে অভিষেক হয়েছে বাবর আজমের। সময়ের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান পাকিস্তানের ৩৪তম টেস্ট অধিনায়ক। আর অন্যদিকে ভারত এ পর্যন্ত খেলেছে ৩৩ জন অধিনায়কের নেতৃত্ব।

গত ২১ বছরে ১৬ জন অধিনায়ক দেখেছে দলটি। এ সময়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৪ জন অধিনায়ক ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজের। শহীদ আফ্রিদি ও মোহাম্মদ হাফিজ এই দুইজন মাত্র একটি করে টেস্টের অধিনায়কত্ব করেছেন।

ঘন ঘন অধিনায়ক পাল্টানোর বদনাম কামানো পাকিস্তান ভারতকে টপকে টেস্ট ইতিহাসে মোট অধিনায়কের সংখ্যায় উঠে এসেছে ৫ নম্বরে। সবচেয়ে বেশি টেস্ট খেলা ইংল্যান্ডের অধিনায়কও সবচেয়ে বেশি। ১০৩০ ম্যাচে ৮১ অধিনায়ক পেয়েছে দলটি।

আর ৮৩৪ ম্যাচে ৪৬ অধিনায়ক নিয়ে এরপরই আছে অস্ট্রেলিয়া। সমান ৩৭ অধিনায়ক নিয়ে এরপরই আছে দক্ষিণ আফ্রিকা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

টেস্টে সবচেয়ে বেশি অধিনায়ক (শীর্ষ ৬)

অধিনায়ক দল ম্যাচঃ
৮১ জন অধিনায়ক নেতৃত্ব দিয়েছেন ইংল্যান্ডের ১০৩০ টি টেস্টে,
৪৬ জন অধিনায়ক নেতৃত্ব দিয়েছেন অস্ট্রেলিয়া ৮৩৪ টি টেস্টে,
৩৭ জন অধিনায়ক নেতৃত্ব দিয়েছেন দ. আফ্রিকা ৪৪২ টি টেস্টে,
৩৭ জন অধিনায়ক নেতৃত্ব দিয়েছেন উইন্ডিজ ৫৫০ টি টেস্টে,
৩৪ জন অধিনায়ক নেতৃত্ব দিয়েছেন পাকিস্তান ৪৩৪ টি টেস্টে,
৩৩ জন অধিনায়ক নেতৃত্ব দিয়েছেন ভারত ৫৪৬ টি টেস্টে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ ১১৯ টি টেস্ট খেলেছে যার নেতৃত্ব দিয়েছেন ১১ জন অধিনায়ক।