ক্ষমতা হস্তান্তর প্রক্রিয়ায় সম্মতি দিয়েছে ট্রাম্প

অবশেষে নির্বাচনে জয়ী জো বাইডেনের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়ায় সম্মতি জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

আজ মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসি’র এক প্রতিবেদনে এমনটি জানা যায়।

ডোনাল্ড ট্রাম্প ফেডারেল এজেন্সিকে হস্তান্তর প্রক্রিয়ার জন্য যা প্রয়োজন তা করার পরামর্শ দিয়েছেন। তবে তিনি ভোটের ফলাফল নিয়ে লড়াই অব্যাহত রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। ট্রাম্পের এ সম্মতি বাইডেনকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে এক প্রকারের স্বীকৃতি দেওয়া মানছে জেনারেল সার্ভিসেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (জিএসএ)। ট্রাম্পের এই সিদ্ধান্ত আসল মিশিগান অঙ্গ রাজ্যে জো বাইডেনের আনুষ্ঠানিক বিজয়ের পর। যা ট্রাম্পের জন্য ছিল বড় ধাক্কা।

এদিকে ক্ষমতা হস্তান্তর প্রক্রিয়ায় ট্রাম্পের সম্মতিকে স্বাগত জানিয়েছেন বাইডেন ও তার দল ডেমোক্র্যাট। দলটি বিবৃতিতে বলেছে, মহামারি নিয়ন্ত্রণে আনা এবং অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে জাতির সামনে যে চ্যালেঞ্জ রয়েছে তা মোকাবিলায় এই সিদ্ধান্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের ফলে ফেডারেল এজেন্সিগুলো আনুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তর প্রক্রিয়া শুরু করতে প্রশাসনিক পদক্ষেপ নিতে পারবে।

এর আগে গত সোমবার বাইডেন ওবামা প্রশাসনে তার পুরনো সহকর্মীদের নিয়ে পররাষ্ট্রনীতি নীতি ও জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ক দল ঘোষণা করেছে। তিনি অ্যান্থনি ব্লিংকেনকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরিকে জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক বিশেষ দূত হিসেবে ঘোষণা করেছেন। ট্রাম্প এক টুইট বার্তায় জিএসএকে উদ্দেশ্য করে বলেন, প্রেসিডেন্ট পরিবর্তনের আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়া শুরু করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

জিএসএও বাইডেন শিবিরকে জানিয়ে দিয়েছে হস্তান্তর প্রক্রিয়া তারা শুরু করেছে। প্রশাসক এমিলি মারফি জানান, তিনি নির্বাচিত প্রেসিডেন্টের জন্য ৬.৩ মিলিয়ন ফান্ড রেখেছেন। লড়াই চালিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ট্রাম্প বলেন, দেশের বৃহত্তর স্বার্থে এমিলি এবং তার দলকে আমি সুপারিশ করছি হস্তান্তর প্রক্রিয়ার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে। আমার দলকেও একই নির্দেশ দিয়েছি।