পরিবারসহ করোনায় আক্রান্ত চিত্রনায়িকা তমা মির্জা

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত চিত্রনায়িকা তমা মির্জা। তার সঙ্গে পুরো পরিবারও এই ভাইরাসে আক্রান্ত। এই নায়িকা নিজেই খবরটি জানিয়েছেন। তিনি বলেন, বাবা ও পারিবারিক ড্রাইভার ১০ দিন আগে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন।

তিনি আরো বলেন, ছোট ভাইয়ের শরীরে ৭ দিন আগে করোনা শনাক্ত হয়। এরপর মায়েরও করোনা পজিটিভ আসে। ক‘দিন ধরে আমার শরীরেরও উপসর্গ দেখা দিলে টেস্ট করাই। শুক্রবার (১০ জুলাই) সকালে আমারও করোনা রেজাল্ট পজিটিভ এসেছে।
তমা জানান, সপরিবারে করোনায় আক্রান্ত হলেও মনোবল শক্ত রেখে প্রত্যেকেই বাসায় আইসোলেশনে থেকে ডাক্তারের পরামর্শ মেনে চিকিৎসা নিচ্ছেন। ইতিমধ্যে তার ড্রাইভার এবং ছোটভাই সুস্থ হয়ে উঠছেন।

তবে তমার বাবার অবস্থার কিছুটা অবনতি হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, বাবার আগে থেকে ফুসফুসে সমস্যা ছিল। এ জন্য বাবাকে নিয়ে একটু ভয় হলেও এখনো বাসায় চিকিৎসা করানো হচ্ছে। অবস্থার উন্নতি না হলে হাসপাতালে নেয়া হবে। তবে আমি এবং মা দুজনেই ভালো আছি।

বাংলাদেশ শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান বলেন, শিল্পী সমিতির সম্মানিত সদস্য চিত্রনায়িকা তমা মির্জা পরিবার সদস্য সবাই করোনায় আক্রান্ত। তমা ও তার পরিবারের জন্য দোয়া করবেন সবাই।

এমবি মানিকের ‘বলো না তুমি আমার’ সিনেমার মধ্য দিয়ে বড় পর্দায় যাত্রা শুরু হয় তমা মির্জার। এরপর কাজ করেছেন ‘ও আমার দেশের মাটি’, ‘তোমার কাছে ঋণী’, ‘ইভটিজিং’, ‘মানিক রতন দুই ভাই’, ‘এক মন এক প্রাণ’, ‘নদীজন’, ‘লাভলি’, ‘প্রেমের অধিকার’ প্রভৃতি সিনেমায়। শাহনেওয়াজ কাকলী পরিচালিত ‘নদীজন’ সিনেমায় অভিনয় করে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রীর পুরস্কার পান তিনি। ২০১৯ সালের ৬ মে ব্যবসায়ী হিশাম চিশতির সঙ্গে বিয়ে হয় তার।