স্ত্রীকে ডিভোর্স দিয়ে ২৫০ বছরের রেকর্ড ভাঙলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী

সম্প্রতি করোনাযুদ্ধে জয়ী হওয়ার পর সদ্য বাবাও হয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। বান্ধবীর কোলে এসেছে ফুটফুটে ছেলে। বান্ধবী তার সন্তানের মা হবার পর এবার স্ত্রী মারিনা উইলারের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদ সম্পন্ন করলেন বরিস। আর এতে ব্রিটেনের ইতিহাসে ২৫০ বছরের রেকর্ড ভাঙলেন তিনি। ব্রিটেনে ২৫০ বছর পর কোনো প্রধানমন্ত্রী পদে থাকাকালীন ডিভোর্স দিলেন স্ত্রীকে।

১৯৯৩ সালে প্রথম স্ত্রী অ্যালেগ্রা ওয়েনের সঙ্গে ডিভোর্সের ১২ দিন পর ভারতীয় বংশোদ্ভূত মারিনা উইলারের ম্যারিনাকে বিয়ে করেন বরিস। উইলার ছিলেন বরিসের সহপাঠী। ম্যারিনার বাবা ব্রিটিশ হলেও মা ভারতীয় বংশোদ্ভূত। বরিস ও ম্যারিনার দুই ছেলে ও দুই মেয়ে আছে। কিন্তু দাম্পত্য কলহের জেরে ২০১৮ সাল থেকে বিবাহ বিচ্ছেদের প্রক্রিয়া শুরু হয়। অবশেষে ২ বছর পর ডিভোর্সের প্রক্রিয়া সম্পন্ন হল।

উইলারের সঙ্গে ডিভোর্সের ফলে এবার প্রেমিকা ক্যারি সাইমন্ডসকে বিয়ে করতে যাচ্ছেন জনসন। গত ২৯ এপ্রিল লন্ডনের এক হাসপাতালে ছেলের জন্ম দিয়েছেন বরিস জনসনের প্রেমিকা ক্যারি।

এর আগে ১৭৬৯ সালে ব্রিটেনের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী অগাস্টাস ফিতজরয় পদে থাকাকালীন স্ত্রীকে ডিভোর্স দিয়েছিলেন। তার ২৫০ বছর পর সেই রেকর্ড ভাঙলেন বরিস।