করোনা রোগী সুস্থ কিনা কিভাবে বুঝবেন?

আজ শুক্রবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর আয়োজিত নিয়মিত বুলেটিনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা এ নির্দেশনাগুলো তুলে ধরেন।

করোনায় সুস্থ রোগীদের কিছু নতুন নির্ণায়ক এসেছে উল্লেখ করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) বলেন, ‘কী হলে রোগী হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাবে? তা হলো রোগীর জ্বর হলে এবং প্যারাসিটামল ছাড়া যদি জ্বর কমে যায়। শ্বাসতন্ত্রের সংক্রামণ : যেমন শুষ্ক কাশি, কফ ও নিশ্বাসের দুর্বলতা এগুলোর উন্নতি হলে। ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে পর পর আটটি পিসিআর-এর ফল নেগেটিভ এলে। এ ছাড়া যদি রোগীর আটটি পিসিআর পরীক্ষা সম্ভব না হয় তাহলে জ্বর ওষুধ ব্যতীত কমলে ও শ্বাসতন্ত্রের উন্নতি যদি পর পর ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত থাকে তবে রোগীকে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়া যাবে।

এ ছাড়া হাসপাতাল থেকে ছাড় দেওয়ার পর অন্ততপক্ষে রোগীকে ১৪ দিন নিজ বাসায় বা মনোনীত জায়গায় ১৪ দিন আইসোলেশনে নিয়ম মেনে থাকতে হবে বলেও জানান নাসিমা সুলতানা। তিনি আরো বলেন, পরবর্তী সময়ে রোগীর বাসা থেকে বা মনোনীত জায়গা থেকে আটটি পিসিআর-এর পরীক্ষার জন্য নমুনা নেওয়া যেতে পারে।

এদিকে করোনাভাইরাসজনিত কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরো সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে এ রোগে আক্রান্ত হয়ে ২০৬ জনের মৃত্যু হলো। এ ছাড়া নতুন করে আরো ৭০৯ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এ নিয়ে মোট ১৩ হাজার ১৩৪ জন করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় ১৯১ জন সুস্থ হয়েছেন। এ নিয়ে মোট দুই হাজার ১০১ জন সুস্থ হলেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ১৯১ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন। এ পর্যন্ত দুই হাজার ১০১ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেলেন।

নাসিমা সুলতানা আরো বলেন, ‘সর্বাধিক সুস্থ হয়েছেন রাজশাহী বিভাগের বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে, সেখানে ৪৭ জন সুস্থ হয়েছেন। এরপরে রয়েছে চট্টগ্রাম বিভাগের বিভিন্ন হাসপাতাল। সেখান থেকে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৩ জন, ঢাকা বিভাগের হাসপাতাল থেকে ২২ জন, খুলনা বিভাগের বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে ১০ জন এবং রাজধানী ঢাকার কুয়েত মৈত্রী হাসপাতাল থেকে ১৫ জন, কুর্মিটোলা হাসপাতাল থেকে ১৫ জন, রিজেন্ট হাসপাতাল থেকে দুজন, সাজেদা ফাউন্ডেশন হাসপাতাল থেকে আটজন এবং রাজারবাগ হাসপাতাল থেকে ১৮ জন। শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতাল থেকে ১৪ জন সুস্থ হয়েছে।’