দিল্লির মসজিদে ঢুকেই নামাজরত ইমামকে গু’লি, স্কুল-মাদ্রাসায় আগুন

ভারতের রাজধানী দিল্লির মুস্তাফাবাদের ব্রিজপুরি এলাকায় মসজিদ থেকে শুরু করে মাদ্রাসা, স্কুল ও বিভিন্ন স্থাপনায় হা’মলা চালানো হয়েছে। মসজিদে ঢুকে নামাজরত মুসল্লিদের গু’লি চালানো এবং রড দিয়ে বেধড়কভাবে পেটানোর ঘটনাও ঘটেছে। এছাড়া অগ্নিসংযোগ ও ভাংচুর চালানো হয়েছে বলে অভিযোগ করছেন এলাকাবাসী।

এ সময় সেখানকার অরুণ মডার্ন পাবলিক সিনিয়র সেকেন্ডারি স্কুলে ভাং’চুর চালানো হয়েছে। ওই স্কুলের শিক্ষক কাসিম জাহিদ বলেন, ‘মঙ্গলবার বিকেল ৪টার পর স্কুলে একদল দু’র্বৃত্ত হা’মলা চালায়। হা’মলা চালিয়ে স্কুলের আসবাবপত্র এবং কম্পিউটার ভেঙে ফেলা হয়েছে। এছাড়া পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে কয়েকটি গাড়ি।’

জানা গেছে, ওই স্কুলে সাত শতাধিক শিক্ষার্থী রয়েছে। তাদের মধ্যে হিন্দু ও মুসলমান সম্প্রদায়ের শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেশি। স্কুলটির পেছনেই রয়েছে মসজিদ। বিকেলে স্কুলে হা’মলা চালানোর পর সন্ধ্যার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়।

এখনও সং’ঘর্ষ থামেনি। বেশ কয়েকটি ভবনে ভাং’চুর চালিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয় উগ্র হিন্দুত্ববাদীরা। এরপর এশার নামাজের আজান হয়। রাত ৮টায় পাশের মসজিদে নামাজ শুরু হলে সেখানে ঢুকে রড দিয়ে মুসল্লিদের পেটাতে শুরু করে দু’র্বৃ’ত্তরা। সেই সঙ্গে গু’লি চালিয়ে দেয় মুসল্লিদের।

এ সময় ১২ থেকে ১৫ জন মুসল্লিদের পেটানো হয় এবং ইমামকেও গু’লি করা হয়। গু’লিবিদ্ধ অবস্থায় ইমাম এখন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।