অবসরের কথা জানালেন কোহলি

টি-টোয়েন্টি এবং ওয়ানডে ম্যাচের বিশ্বকাপ আগামী তিন বছরের মধ্যে আয়োজিত হতে চলেছে। এই দুই বিশ্বকাপ খেলার পরেই ক্রিকেটের তিনটি ফরম্যাটের মধ্যে থেকে যে কোনও দুটি বেছে নিতে পারেন বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন কোহলি। গত শুক্রবার থেকে নিউ জিল্যান্ডের বিরুদ্ধে দুই টেস্টের সিরিজ খেলতে নামছে ভারতীয় দল।

কমপক্ষে তিন বছর তিন ফর্ম্যাটেই খেলবেন। তারপরে ওয়ার্কলোডের কথা বিবেচনা করে অবসরের সিদ্ধান্ত নেবেন। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রথম টেস্ট খেলতে নামার আগেই ক্যাপ্টেন কোহলির মুখে অবসরের ঘোষণা। শুক্রবারেই প্রথম টেস্ট শুরু হচ্ছে কিউয়িদের বিপক্ষে।

তার ৪৮ ঘণ্টা আগে সাংবাদিক সম্মেলনে কোহলি বলেন, ‘আরও বড় পরিকল্পনার কথা মাথায় রাখছি। এখন থেকে রগরগে আরও তিনটে বছর খেলতে চাই। তারপরে অন্যরকম আলোচনা করতে চাই।’

এ সময় আইসিসির ব্যস্ত সূচি সম্পর্কে প্রশ্ন করা হয়। উত্তরে তিনি বলেন, ‘প্রায় আট বছর আমি বছরে ৩০০ দিন করে খেলায় ব্যস্ত থাকছি। এখন আমরা ব্যক্তিগতভাবে আগের তুলনায় অনেক বেশি বিরতি নিচ্ছি। ভবিষ্যতে হয়তো দেখবেন আরও বেশি বিরতি নেওয়া শুরু করব। শুধু আমি নয়, সমস্ত ক্রিকেটারই। এভাবে খেলে যাওয়াটা আমার পক্ষে কঠিন।’

‘অনুশীলনে ক্ষীপ্রতা দেখানো, ম্যাচে মনোযোগ দিয়ে খেলা এবং অধিনায়ক হিসেবে খেলা নিয়ে আলোচনা করা, এত চাপ একসঙ্গ। এরপর যখন শরীর ক্লান্ত হবে, যখন আমার বয়স হয়তো ৩৪-৩৫ হবে, তখন অন্য কথা ভাবা যাবে। আপাতত ২-৩ বছর কিছু ভাবছি না। তাছাড়া পরবর্তী তিন বছর দলেরও আমাকে প্রয়োজন। আপাতত আমি নিজেকে কঠোর পরিশ্রমে ৩ বছর কাটানোর জন্য প্রস্তুত করছি। তারপর ভাবা যাবে।’