স্বস্তির খবর নিয়েই ঢাকায় ফিরলেন নির্বাচকরা

মাহমুদুল্লাহকে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে ফোকাস করতে। সাকিব আল হাসান নিষেধাজ্ঞায় পড়ে খেলার বাইরে। ইমরুল কায়েস প্রতিযোগিতায় নেই। সিনিয়র ক্রিকেটারদের মধ্যে বাকি থাকলেন তামিম ইকবাল ও মুশফিকুর রহিম। বিসিবির ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের পছন্দ-অপছন্দেরও ব্যাপার আছে। সব মিলিয়ে

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টেস্ট স্কোয়াড গড়া নিয়ে হিশশিম খাওয়ার মতো অবস্থা জাতীয় দল নির্বাচকদের। দলে বেশি সিনিয়র ক্রিকেটার নেই। এ অবস্থায় মুশফিককে না ফেরালে ব্যাটিং লাইনআপ আরও নড়বড়ে হয়ে পড়ে।
গতকাল শনিবার তাই মুশফিককে বোঝাতে কক্সবাজার গেলেন দুই নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু ও হাবিবুল বাশার। দু’পক্ষের আলাপ শেষে স্বস্তি নিয়েই ঢাকায় ফিরেছেন নির্বাচকরা। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজ শুরুর আগে বিতর্ক চাপা দিতে পারা ভালো দিক।

এদিকে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হোম টেস্টে মুশফিককে না নেওয়ার কথা বলেছিলেন প্রধান নির্বাচক নান্নু। প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গোও টেস্ট দলে বারবার পরিবর্তনের কথা তুলে ধরেছিলেন সংবাদ সম্মেলনে। বিসিবির ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তমতো কাজ করছিলেন তারা। সর্বশেষ এপ্রিলে পাকিস্তানে খেলতে যাওয়ার শর্ত জুড়ে দেওয়ারও চেষ্টা হয়েছে। শেষ পর্যন্ত যে হৃদ্যতাপূর্ণ একটা সমাধানে পৌঁছানো গেছে, সেটাই স্বস্তির।