দেওবন্দ মাদরাসা স’ন্ত্রাসবাদের আতুরঘর: ভারতীয় মন্ত্রী

ইসলামি শিক্ষার অন্যতম প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিশ্বে পরিচিত দেওবন্দ। তবে এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে স’ন্ত্রাসবা’দের আতুর ঘর বলে বর্ণনা করেছেন ভারতের কেন্দ্রীয় পশুপালন ও মৎস দপ্তরের মন্ত্রী ও বিজেপি নেতা গিরিরাজ সিং। বুধবার দেওবন্দে একটি সভায় তিনি এই মন্তব্য করেন।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর এমন মন্তব্যের নিন্দা করছেন দেওবন্দ দারুল উলুমের সাবেক ছাত্র থেকে বুদ্ধিজীবি।

এ প্রসঙ্গে পশ্চিম বঙ্গের মন্ত্রী গিরিরাজ সিংয়ের মন্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় বলছিলেন, ‘দেওবন্দকে যদি স’ন্ত্রাসবা’দী বলা হয়, আমি বলব মোদির বন্ধু, সৌদি আরবের রাজা সালমান, সেখানকার ইমামদেরকে একথাটা গিয়ে বলুন না একবার। সেখানকার ইমামরা যা শিক্ষা দেন, দেওবন্দও সেই শিক্ষা দেয়। তাহলে সৌদির ইমামরাও স’ন্ত্রাসবা’দী! বুকের পাটা থাকলে একবার সৌদি আরবে গিয়ে বা মক্কা শরিফে গিয়ে বলুন না এই কথাটা!’

সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী মনে করিয়ে দিলেন, যে প্রতিষ্ঠানকে স’ন্ত্রাসবা’দের উৎস বলা হচ্ছে, সেখানে ভারতের প্রথম রাষ্ট্রপতি রাজেন্দ্র প্রসাদ গিয়েছিলেন- কারণ দারুল উলুমের তৎকালীন প্রধান সাইফুল ইসলাম হুসেইন আহমেদ মাদানী রাজেন্দ্র প্রসাদের সঙ্গে একই জেলে বন্দী ছিলেন স্বাধীনতা আন্দোলনে অংশ নিতে গিয়ে।

মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী থেকে শুরু করে সুভাষ চন্দ্র বসু- সকলের সঙ্গেই দেওবন্দের সখ্যতা সুবিদিত।