তামিমের মতো ইমনকেও মনে রাখবে ক্রিকেট বিশ্ব

গত ২০১৮ এশিয়া কাপে ভাঙা হাত নিয়ে এক বল খেলে সাহসের দারুণ উদাহরণ গড়েছিলেন তামিম ইকবাল। এবার অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের ফাইনালে মাংসপেশিতে টান নিয়ে অনেকক্ষণ ব্যাটিং করেছেন পারভেজ হোসেন ইমন।

এমন সাহসের সৌন্দর্য শুধু একটা বল ঠেকিয়ে রাখা হতে পারে। আবার কখনো ৩৪ বলে ৩ চারে ২২ রানের ইনিংসও হতে পারে সাহসী সুন্দর ব্যাটিংয়ের অনুপম নিদর্শন! মাংসপেশিতে চোট নিয়ে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে দৌড়ে নেওয়া একেকটি রান হতে পারে সাহসের, সৌন্দর্যের উদাহরণ।

এদিকে বাংলাদেশের ক্রিকেটে সাহসী ব্যাটিংয়ের কথা বললে এত দিন শুধু ২০১৮ এশিয়া কাপে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তামিম ইকবালের ওই এক বল খেলার ছবিটিই স্মৃতিতে ভাসত। সে তালিকায় এবার যোগ হয়ে গেল আরেকটি নাম, পারভেজ হোসেন ইমন!

ইতিহাস যতবার যেকোনো পর্যায়ের ক্রিকেটেই বাংলাদেশের প্রথম বিশ্বকাপ জয়ের গৌরবের কাহিনি বলবে, যতবার পচেফস্ট্রুমে অনূর্ধ্ব-১৯ ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের দারুণ দাপুটে জয়ে চোখ ফিরবে, সাহসের দারুণ ছবি হয়ে বারবার সামনে আসবে পারভেজের ৩৪ বলে ২২ রানের ইনিংসের ছবি।

অন্যদিকে ২০১৮ এশিয়া কাপের ভাঙা এক হাতে প্লাস্টার বেঁধে এক হাতে তামিমের ব্যাট করার ওই দৃশ্য কেউ ভোলার কথা নয়। স্কোরবোর্ড বলবে, ভাঙা হাত নিয়ে তামিম সেদিন শুধু একটি বল খেলেছিলেন, কোনো রান নেননি। কোনোমতে ঠেকিয়েছেন শুধু।

কিন্তু ভাঙা হাতে প্লাস্টার বেঁধে ঠেকানো তো নয়, তামিমের ওভাবে মাঠে নামাই অসীম সাহসের গান গায়। তামিমকে অন্য পাশে পেয়ে, বারবার ওভারের শেষ বলে স্ট্রাইক নিয়ে তামিমকে অন্য পাশে রেখে সেদিন দুর্দান্ত ব্যাটিং করা মুশফিকও যে ক্রিকেটের অনন্য সৌন্দর্যের গল্প লিখেছেন।

তামিম-মুশফিকের জুটিটা সেদিন ছিল মাত্র ১৬ বলের, মাত্র ৩২ রানের, অল্প কিছু মিনিটের। আর অনেক সাহসের। সেই ম্যাচে দুর্দান্ত জয় পায় টাইগাররা। এদিকে তামিমের মতো হাতে হয়তো ব্যান্ডেজ ছিল না। কিন্তু ইমনের গল্পটাও কম বীরত্বের নয়। যা মনে রাখবে ক্রিকেট বিশ্ব।