কুরআন পু’ড়ানো সেই ঘটনার পর নরওয়েতে ইস’লাম ধর্ম গ্র’হণকারীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে

ইস’লাম শিক্ষা দেয় যে আল্লাহ দয়ালু, করুনাময়, এক ও অদ্বিতীয়। ইস’লাম মানব জাতিকে সঠিক পথ দেখায়। ইস’লামী বিশ্বা’স অনুসারে, আদম হতে শুরু করে আল্লাহ্ প্রেরিত সকল নবী ইস’লামের বাণীই প্রচার করে গেছেন। যুগে যুগে বহু মানুষ ভিন্ন ধ’র্ম থেকে ইস’লাম গ্রহন করেছেন। তারই ধারাবাহিকতায় নরওয়েজিয়ানদের মধ্যে ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

নর ওয়ের সেই কু’রআন পো’ড়ানোর ঘটনায় মানুষের মধ্যে ইসলাম সম্পর্কে জানার আগ্রহ আরো বেড়ে যায়। তারা ধীরে ধীরে এই ধর্মের প্রতি আকৃষ্ট হচ্ছে।

নরওয়ের নেতৃস্থানীয় ভার্ডেন্স গ্যাং পত্রিকার রিপোর্ট অনুযায়ী, ১৯৯০ এর দশকে যেখানে মাত্র ৫০০ জন ইস’লাম গ্রহণ করেছেন সেখানে সাম্প্রতিক বছরগু’লিতে ধ’র্মান্তরিত মু’সলমানের সংখ্যা প্রায় ৩ হাজার।

গবেষণা থেকে দেখা গেছে, নরওয়েতে মু’সলমানের সংখ্যা ২০০৫ সালে ছিল ১ লাখ ২০ হাজার। ২০০৯ সালে সেই সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১ লাখ ৬৩ হাজার। পিউ রিসার্চ সেন্টারের তথ্য অনুসারে, উচ্চ অ’ভিবাসনের কারণে ২০৫০ সালের মধ্যে দেশটিতে মু’সলমানের সংখ্যা বেড়ে দাড়াতে পারে ২২ লাখে।

এদিকে, গত বুধবার নরওয়েজিয়ান পরিসংখ্যান বিভাগের প্রকাশিত এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ২০১৮ সালে নরওয়ের রাজধানী ওসলোতে পুরুষ শি’শুদের মধ্যে ‘মুহাম্ম’দ’ ছিল সবচেয়ে জনপ্রিয় নাম। এবার দিয়ে টানা ১১তম বারের মতো এই নাম শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে। এর পরেই পছন্দের নামের তালিকায় আছে ‘অস্কার’, ‘আকসেল’ এবং ‘জ্যাকব’।