সেই ডাক্তারের মৃত্যু নিয়ে মিথ্যাচার চীনের

করোনাভাইরাসের বিষয়ে প্রথম খবর দেয়া চক্ষু বিশেষজ্ঞ ডাক্তার লি ওয়েনলিয়াং’র মৃত্যু নিয়ে মিথ্যাচার করেছে চীন সরকার। চীনের হুবেই প্রদেশের উহান সেন্ট্রাল হাসপাতালের বরাত দিয়ে এই খবর জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উহান হাসপাতালের এক কর্মকর্তা আল জাজিরাকে বলেন, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ওই ডাক্তারের অবস্থা খারাপ ছিল এবং আগেই তার হৃদস্পন্দন বন্ধ হয়ে যায় কিন্তু নেতাদের চাপ পড়েই তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছিল। জনক্ষোভের থেকেই বাঁচতেই এমন চীন সরকার এমন উদ্যোগ নিয়েছ বলে ধারণা করা হচ্ছে।

চীনের স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ৩টা৪৮ মিনিটে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম উইবোতে একটি পোস্টের মাধ্যমে উহান সেন্ট্রাল হাসপাতাল জানায়, হৃদস্পন্দন থেমে যাওয়ার ছয় ঘণ্টা পর ওই ডাক্তারের মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়েছে। আর এমন পোস্টের পরই সেখানে ক্ষুব্ধ হয়ে পোস্ট করতে থাকেন চীনের জনগণ। ওই পোস্টে একজন লেখেন, এটা জানা খুব গুরুত্বপূর্ণ আসলে ওই ডাক্তার কখন মারা গেছেন যাতে বোঝা যায় যে তার মৃত্যুর সময় কর্তৃপক্ষ নির্ধারন করে দেয়নি।

করোনা ভাইরাসের উৎপত্তিস্থল উহানের সেন্ট্রাল হাসপাতালে চক্ষু বিশেষজ্ঞ হিসেবে কর্মরত ছিলেন ৩৪ বয়সী এই চিকিৎসক। গত ৩০ ডিসেম্বর লি ওয়েনলিয়াং তার সহকর্মীদের করোনাভাইরাস নিয়ে প্রথম সতর্কবার্তা দিয়েছিলেন।

করোনভাইরাসে চীনের হুবেই প্রদেশে নতুন করে আরো ৬৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। করোনাভাইরাসের উৎপত্তিস্থল উহানেই বৃহস্পতিবার মারা গেছেন আরো ৬৪ জন। এদিকে পুরো চীনে ৩ হাজার ১ শত ৪৩ জন নতুন করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। এছাড়া বিশ্বের প্রায় ২৫ টি দেশে করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।

গত ডিসেম্বরে চীনের উহান শহরে করোনাভাইরাসের আবির্ভাব ঘটে। প্রতিনিয়ত এই ভাইরাসে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের শরীরে প্রাথমিক লক্ষণ হিসেবে শ্বাসকষ্ট, জ্বর, সর্দি, কাশির মত সমস্যা দেখা দেয়।