করোনা ভাইরাসের প্রতিষেধক আবিষ্কার করল অস্ট্রেলিয়া!

চীনের করোনা ভাইরাস নিয়ে চীনসহ সারা বিশ্ব রয়েছে আতঙ্কে। এরইমধ্যে ভয়াবহ এই ভাইরাসটি প্রতিরোধে আরেকটি নতুন ভাইরাস উদ্ভাবনের দাবি করেছে অস্ট্রেলিয়ার বিজ্ঞানীরা।

এই প্রথম কোনো দেশ চীনের বাইরে এ ভাইরাস আবিষ্কার করল। অস্ট্রেলিয়ার বিজ্ঞানীদের দাবি, নতুন এই ভাইরাসটি করোনা ভাইরাসের চিকিৎসায় উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে। ভাইরাসটি খুব শিগগিরই করোনা ভাইরাস সনাক্ত এবং চিকিৎসায় ব্যবহার করা হবে বলেও জানান তারা।

দেশটির মেলবোর্নের একদল গবেষক জানান, তারা সংক্রামিত রোগীর কাছ থেকে করোনা ভাইরাসের অনুলিপি বানাতে সক্ষম হয়েছেন। এরআগে, গত শুক্রবার (২৪ জানুয়ারি) তাদের কাছে করোনা ভাইরাসের নমুনা পাঠানো হয়। মেলবোর্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের পিটার দোহার্টি ইনস্টিটিউট ফর ইনফেকশন অ্যান্ড ইমিউনিটির চিকিৎসকরা নতুন এই ভাইরাস উদ্ভাবন করেন।

এদিকে, বিবিসির এক প্রতিবেদনেও এ তথ্য জানানো হয়েছে। বলা হয়, করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক আবিষ্কারের পথে এটি একটি উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি। এ গবেষণা থেকে পাওয়া ফল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গবেষণাগারে পাঠানো হবে।

আবিষ্কারের বিষয়ে বিশেষজ্ঞ দলের ডা. মাইক ক্যাটন বলেছেন, ‘আমরা বহু বছর ধরে এ জাতীয় একটি ঘটনার জন্য পরিকল্পনা করে আসছি এবং সে কারণেই আমরা এতো দ্রুত উত্তর পেতে সক্ষম হয়েছি।’

তবে শিনহুয়া নিউজ এজেন্সির উদ্ধৃতি দিয়ে ডয়েচে ভেলে জানিয়েছে, শুধুু চীন নয়, অন্যান্য দেশের বিজ্ঞানীরাও এই ভাইরাসটির ভ্যাকসিন আবিষ্কারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তবে চীনা গবেষকরা খুব দ্রুতই রোগটির সঠিক রূপ শনাক্ত করতে পেরেছেন।

সবশের্ষ চীনে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরো ২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা ১৩২ জনে দাঁড়ালো। আক্রান্ত হয়েছে ছয় হাজারের বেশি মানুষ।

ভাইরাস সংক্রমণ আক্রান্ত প্রতিরোধে দেশটিতে ভ্রমণ ও গণপরিবহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। বিভিন্ন দেশের একাধিক বিমান সংস্থা ফ্লাইট বাতিল করেছে।

চীনের গণমাধ্যম সিনহুয়ায় এক বিশেষজ্ঞের বরাতে বলা হয়েছে, আগামী ৭ থেকে ১০ দিনের মধ্যে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা সর্বোচ্চ আকার ধারণ করতে পারে। চীন ছাড়াও ১৮টি দেশের ৭৮ জন এ ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

এছাড়া, যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি, থাইল্যান্ড, দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান, মালয়েশিয়া, নেপাল, ফ্রান্স, কানাডা এবং অস্ট্রেরিয়াতেও ছড়িয়ে পড়েছে ভাইরাসটি।