হালাল নাইট ক্লাবের পর এবার সামরিক বাহিনীতে সৌদি নারীরা

বর্তমান সৌদি সরকার এখন বিতর্কিত অনেক কিছুই হালাল ঘোষণা করছে । দেশে সিনেমা হয় চালু, হালাল নাইট ক্লাব চালু, নারীদের গাড়ি চালানোতে বৈধতা দেয়ায় মুসলমানের কাছে পবিত্র এই দেশটি মুসলমানদের রোষানলে পড়। এবার সৌদি আরবের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো সামরিক বাহিনীতে যোগ দিয়েছেন দেশটির নারীরা। এখন থেকে দেশটির সামরিক বাহিনীর বিভিন্ন শাখায় সিপাহি থেকে শীর্ষ কর্মকর্তা পর্যায়ের দেশটির নারীরাকাজের সুযোগ পাবেন ।

রোববার সৌদি সামরিক বাহিনীর চিফ অব জেনারেল স্টাফ ফায়াদ আল-রুয়ালি সামরিক বাহিনীতে নারীদের জন্য আলাদা শাখা চালুর ঘোষণা দেন। দেশটির একটি গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়- নিয়োগ ও তালিকাভুক্তি বিভাগের পরিচালক মেজর জেনারেল ইমাদ আল-আইদান নতুন নিয়োগ পাওয়া নারীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘নারীরা যেসব জায়গায় দায়িত্ব পালন করবে তার একটি তালিকা আমরা ইতোমধ্যেই করেছি। তালিকা অনুযায়ী দায়িত্ব ভাগ করে দেওয়া হবে।’ এর আগের বছর অক্টোবরে দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সামরিক বাহিনীতে নারীদের নিয়োগের ঘোষণা দিয়েছিল। তারই ধারাবাহিকতায় চলতি বছর সেনা, নৌ ও বিমানবাহিনীর বিভিন্ন পদে কাজের সুযোগ পেলেন সৌদি নারীরা।

‘সৌদি ভিশন ২০৩০’ নামে এক বিশাল পরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। আধুনিক বিশ্বের সঙ্গে তাল মেলাতে ও অতিরক্ষণশীলতার খোলস থেকে বেরিয়ে আসতেই নাকি এই উদ্যোগ। এর আগে কার ড্রাইভিং ও পুরুষ সঙ্গী ছাড়া চলাফেরার অনুমতি দিয়েছিল সরকার। সৌদির উপদেষ্টা পরিষদ শুরা কাউন্সিলের প্রাক্তন সদস্য হায়া আল-মুনি বলেন, ‘এই দেশের নতুন বিধিবিধান পুরোপুরি নারীবন্ধব। নারীদের অধিকার নিয়ে রাষ্ট্র এখন সজাগ। তাই নানা ধরনের কর্মক্ষেত্রে ঢোকার সুযোগ পাচ্ছেন নারীরা। রাষ্ট্র যদি নারী-পুরুষকে সমান দৃষ্টিতে না দেখত তাহলে এমন চিত্র দেখা যেত না।’