পাকিস্তানের আতিথেয়তা মিস করব- মুশফিক

পাকিস্তানে না যাওয়ার সিদ্ধান্তে যেন অন্তঃপীড়ায় ভুগছেন মুশফিক। জাতীয় দলের খেলা টিভিতে দেখতে হবে- সেটাই বেশি ভাবাচ্ছে তাকে। গতকাল সাংবাদিকের সামনে জাতীয় দলের এই ক্রিকেটার মন খুলে কথা বলেছেন ক্রিকেট নিয়ে।

ব্যাট হাতে ছন্দে থেকেও পাকিস্তানে যাচ্ছেন না, কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, যে কোনো জায়গায় বাংলাদেশ দলের হয়ে খেলা বড় সম্মানের। আসলে পরিবার যখন শঙ্কিত থাকে, তখন মন সায় দেয় না। শরীর ও মন একসঙ্গে কাজ না করলে সফল হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে। খেলতে যাচ্ছি না বলে অবশ্যই খারাপ লাগছে। তবে বাংলাদেশ দল এখন সেই জায়গায় নেই যে, এক-দু’জন খেলোয়াড় না গেলে খারাপ করবে। ভারতে টি২০ সিরিজের কথা চিন্তা করেন, আমরা দু’জন সিনিয়র ক্রিকেটারকে ছাড়া খেলেও জিতেছি। এটা ভালো লক্ষণ। তরুণরা আছে, তারা ভালো খেলবে, সে প্রত্যাশা করি।

তিনি আরও বলেন, পাকিস্তানের মাটিতে পাকিস্তানই ফেভারিট। তাদের হারানো যাবে না, তা নয়। নির্দিষ্ট দিনে যারা ভালো খেলবে তারাই জিতবে। আমরা আন্ডারডগ হিসেবে যাচ্ছি। তবে সবাই খুব ভালো ফর্মে আছে, আশা করি ভালো কিছু হবে। আর খুবই খারাপ লাগবে বাইরে থেকে দেশের খেলা দেখতে।

পাকিস্তানে না যাওয়ার পেছনে নিউজিল্যান্ডের ঘটনার কোনো যোগসূত্র আছে কিনা এমন প্রশ্ন করাই তিনি জানান, “তা তো অবশ্যই। ওই ঘটনার পর কিন্তু আমার পরিবার খেলতে যেতে বারণ করেনি। এই প্রথম আপত্তি করল। আমি কিন্তু বলিনি, পাকিস্তানে কখনোই যাব না। আমার কাছে মনে হয়েছে, পরবর্তী সময় কয়েকটা বড় দল ওখানে গেলে যে সুযোগ-সুবিধা সৃষ্টি হবে এবং তারা যেভাবে যাবে সেটার ফিডব্যাক পেলে আমার জন্য পরিবারকে বোঝাতে সহজ হবে।’

তিনি বলেন, আমি কখনোই চাই না সফরটা মিস করতে। পাকিস্তানে আগেও ট্যুর করেছি। ওখানকার সুযোগ-সুবিধা, খাবার সবকিছু আমার পছন্দের। তাদের আতিথেয়তা মিস করব। তবে ভবিষ্যতে অবশ্যই চেষ্টা থাকবে পাকিস্তানে যাওয়ার।

পাকিস্তান সমর্থকরা বলছে, আপনি আইপিএলে দল পেয়েছেন, তাই পাকিস্তানে যাচ্ছেন না? এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, না না, এরকম কিছু না। আইপিএলে কতবারই নাম দেওয়া হয়েছে কিন্তু হয়নি। আমরা খুবই খারাপ লাগছে না যেতে পেরে।