নিজের জালে নিজেই আটকা পড়লেন মোদি

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর এক টেলিভিশন চ্যানেল সাক্ষাৎকারকে ঘিরে গোটা দিল্লী যেন নতুন করে ক্ষোভের আগুনে জ্বলছে। সেই সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেছিলেন, ‘‘ভারতের সব মানুষের জন্য ‘জাতীয় নাগরিক পঞ্জি’ (এনআরসি) হবে।’’

এমন সময় তাঁকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, অমিত শাহ গোটা দেশে এনআরসি চালু করার কথা বলছেন, অথচ কংগ্রেস ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়দের মত, এতে সাম্প্রদায়িক উস্কানি দেওয়া হবে। বেশ রেগেমেগেই প্রধানমন্ত্রী জবাব দিয়েছিলেন, ‘‘দুনিয়ায় এমন কোনও দেশ আছে, যেটি ধর্মশালা? যার কাছে নাগরিকদের রেজিস্টার নেই? প্রশ্ন তাদের করা উচিত, যারা ৭০ বছরে নাগরিকদের রেজিস্টার তৈরি করেনি। তারা পাপী, দোষী। ভারতের সব মানুষের জন্য (রেজিস্টার) তৈরি হচ্ছে। সেখানে সাম্প্রদায়িক প্রশ্ন কোথা থেকে এল?’’

মোদির এই সাক্ষাৎকারের অংশ আজ সকালেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দিয়েছে কংগ্রেস। আর সাথে সাথেই শুরু হয়ে যায় শেয়ার-কমেন্টসের বন্যা।

কংগ্রেস দলের নেতারা বলছেন, ‘‘যাঁরা ভাবছেন গত কাল রামলীলা ময়দানে প্রধানমন্ত্রী শুধু তাঁর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের বক্তব্য খণ্ডন করেছেন, ভুল। যদি ভাবেন, দেশের রাষ্ট্রপতি, প্রতিরক্ষামন্ত্রীর বক্তব্যেরও উল্টো পথে হেঁটেছেন, তা-ও ভুল। নরেন্দ্র মোদী নিজে নিজেকেই মিথ্যাবাদী প্রমাণ করেছেন। যাঁরা আকছার মিথ্যা বলেন, তাঁদের এমন সমস্যা হয়। ভুলে যান, নিজে কখন কী বলেছেন!’’ প্রসঙ্গত, গত কাল প্রধানমন্ত্রী দাবি করেছিলেন, ‘‘এনআরসি নিয়ে সরকারের মধ্যে কোনও কথা হয়নি। বিরোধীরা মিথ্যা বলছেন।’’
সূত্রঃ আনন্দবাজার