মন্ত্রীত্ব হারাতে পারেন যারা

সম্প্রতি আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় স‌ম্মেল‌নের মাধ্যমে দ‌লের নবম বা‌রের মত সভাপ‌তি নির্বা‌চিত হ‌য়ে‌ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হা‌সিনা সেই সাথে টানা দ্বিতীয়বারের মতো দলের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন ওবায়দুল কা‌দের।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের এই নতুন কমিটিতে তেমন কোন চমক না থাকলেও আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড এবার দলকে সরকার থেকে কার্যকরভাবে পৃথক করার উদ্যোগ নিয়েছে। দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার ইচ্ছা তেমনটাই। তারই নেপথ্যে আওয়ামী লীগের নতুন কমিটিতে জায়গা পাওয়া এমন কয়েকজন মন্ত্রী সরকারের মন্ত্রীসভায় তাদের পদ হারাতে পারেন বলে আভাস পাওয়া গেছে।

আওয়ামী লীগের নতুন নেতৃত্ব নির্বাচন কমিটির প্রধান বর্ষিয়ান নেতা অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুনের বক্তব্য অনুযায়ী এমনটাই ধারনা করা হচ্ছে। তার বক্তব্য অনুযায়ী- আওয়ামী লীগের সদ্য সাবেক কমিটিতে বিভিন্ন সম্পাদক পদে ছিলেন এমন ৬ জন মন্ত্রীসভায় থাকায় এবার দলের নতুন কমিটিতে রাখা হয়নি। তারা হলেন- বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুন্সী, গণপূর্ত মন্ত্রী স.ম. রেজাউল করিম, নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালেদ মাহমুদ চৌধুরী, পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরি নওফেল এবং ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আব্দুলাহ।

দলে প্রধানমন্ত্রী ছাড়া আরও ৩ জন মন্ত্রী আছেন। তারা হলেন- সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, তথ্য মন্ত্রী হাছান মাহমুদ এবং শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

শেখ হাসিনার ইচ্ছা, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হবে সার্বক্ষনিক। অর্থাৎ দলের দ্বিতীয় শীর্ষস্থানীয় পদে অধিষ্ঠিত ব্যক্তির একমাত্র পেশা, পরিচয় ও কাজ হবে শুধুই আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

সে অনুযায়ী, এখন যদি কোনও মন্ত্রীকে সাধারণ সম্পাদক করা হয় তাহলে তাকে মন্ত্রীত্ব ছাড়তে হবে। তাইতো পদপ্রত্যাশী ও পদে থাকা নেতারা রয়েছেন দুশ্চিন্তায়।

এদিকে মন্ত্রীসভায় রদবদল আসছে এমনটা আগেই বলেছিলেন সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তবে এখন দেখার বিষয় , আসলে সামনে কি হয়।